সোশ্যাল মিডিয়া

বাংলা ইন্ডাস্ট্রির স্বজনপোষণ নিয়ে বিস্ফোরক শ্রীলেখা

সুশান্ত সিং-এর মৃত্যুর পর নেপোটিজম নিয়ে বলিউড-টলিউড সর্বস্তরে নানান কথা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত এবং পরিচালক অভিনব কাশ্যপ। এছাড়াও আরও অনেক অভিনেতা অভিনেত্রী সুশান্তের মৃত্যুর জন্য দায়ী করেছেন ইন্ডাস্ট্রিকে। তবে নেপোটিজম কি শুধুমাত্র বলিউডেই? রয়েছে টলিউডেও। এমন কিছু অভিজ্ঞতা নিয়ে মুখ খুললেন টলিউড অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।

তিনি নিজের ইউটিউব চ্যানেলে এসে একটি লাইভ ভিডিও করেন। তাতে তিনি নিজের ডিপ্রেশন, প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণার প্রেম কাহিনীর কারণেই তিনি নায়িকার চরিত্র পাননি এবং নেপোটিজম নিয়েও কথা বলেন।

অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র বলেন ” আমি বেশি সিনেমায় মূল চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পায়নি। কারণ তখন বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে একচেটিয়া রাজত্ব করতো সকলের প্রিয় বুম্বা দা। তখন দেখেছি প্রসেনজিৎ চেয়ারে পায়ের ওপর পা তুলে বসে থাকতো এবং নিচে বসত পরিচালকেরা। আর নায়িকার ভূমিকায় সবসময় থাকতো ঋতুপর্ণা দি। কারণ তখন তাদের প্রেম চলছিল। সাগর বন্যা সিনেমার শুটিং এর সময় দীঘা যাওয়ার পথে গাড়ি দুর্ঘটনা ঘটে এবং আমি আহত হই হসপিটালে ভর্তিও হাই কিন্তু বুম্বা দা একবারও আমাকে দেখতে আসেননি। তার নাকি সময় ছিল না। এখানেই শেষ নয় অন্নদাতা সিনেমায় আমি মেন নায়িকার চরিত্র পেয়েছিলাম কিন্তু প্রসেনজিৎ না করেন। তিনি বলেন যে শ্রীলেখা কাজ করলে এই সিনেমা কেও হলে দেখতে যাবে না। কিন্তু সিনেমাটি হিট হয়। আর ঋতু দি সবসময় নিজের ইমেজ সবার কাছে ভালো রাখে কিন্তু ভেতরে আলাদা মানুষ। টলিলাইটস ছবিতে প্রথমে আমি ছিলাম তারপর সেখানেও নজর পড়ে ঋতুপর্ণার। অর্জুন কে ফোন করে বলে শ্রীলেখাকে বাদ দাও আমাকে নাও। তাও অর্জুন আমকে নিয়েই কাজটি করেন। আমি বলেছিলাম ঋতু দিকে তোমার হা মুখ টা ছোটো করো।” আসলে ইন্ডাস্ট্রি তে ক্ষমতা যার সেই রাজা। সত্যিই স্টারদের কোথায় সেই তথ্যই উঠে আসছে। শ্রীলেখা আবারও বলেন ” সৃজিত আমার কাছের বন্ধু কিন্তু সিনেমা করার সময় স্বস্তিকাকে নিল আমাকে ডাকলো না। হয়তো আমার জন্য কোনো চরিত্র ছিলনা। আমি লড়াইটা শুরু থেকেই করছি আর ভবিষ্যতেও করবো। একা এসেছি একাই লড়ব। কারণ আমার মুনমুন সেন , এর মত মা ইন্ডাস্ট্রিতে নেই এবং রঞ্জিত মল্লিক, সন্তু মুখোপাধ্যায় এর মত বাবাও নেই”।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker